Sunday, 27 April 2014

যুদ্ধকালে আওয়ামীলীগ নেতাদের শরনার্থী জীবনের যত কীর্তি….

১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ কালরাতে পাক হানাদার বাহিনীর নৃশংস হামলার মধ্য দিয়ে বাংলার স্বাধীনতা অনিবর্তনীয় হয়ে ওঠে। রাত বারোটার পরে ঢাকায় যখন চলছিল স্বেচ্ছা-আত্মসমর্পন পর্ব, ঠিক প্রায় একই সময়ে চট্টগ্রাম সেনানিবাসে গর্জে ওঠে- “উই রিভোল্ট!” স্বাধীন বাংলাদেশ জড়িয়ে পড়ে জন্মযুদ্ধে, যার ডাক আসে কালুরঘাট বেতার থেকে। মেজর জিয়ার ডাকে সাড়া দিয়ে মরনপণ লড়াইয়ে সামিল হয় বাঙ্গালি সেনা, পুলিশ, রাইফেলসের ১১ হাজার যোদ্ধা।

২৫ মার্চ সন্ধার পর থেকে আওয়ামীলীগের নেতারা ভিড় করতে থাকেন শেখ মুজিবের ৩২ ধানমন্ডির বাড়িতে। দলীয় সাধারন সম্পাদক তাজউদ্দীন মুজিবের কন্ঠে স্বাধীনতার ঘোষণা রেকর্ড করার উদ্দেশ্যে টেপরেকর্ডার নিয়ে গেলে “রাষ্ট্রদ্রোহিতার ভয়ে” মুজিব ফিরিয়ে দেন, বরং তাজউদ্দীনকে “নাকে তেল দিয়ে ঘুমাতে” নির্দেশ দেন (আহমদ, শারমিন, ২০১৪,‘তাজউদ্দীন আহমদ নেতা ও পিতা’)। দলীয় নেতাদের নিরাপদে সরে পড়ার নির্দেশ দিয়ে সকল পরমার্শ অগ্রাহ্য করে মুজিব স্বেচ্ছায় ধরা দেয়ার সিদ্ধান্তে অনড় রইলেন, যদিও তার আগেই স্বেচ্ছাসেবক নেতা আবদুর রাজ্জাক মারফত তিনি আগাম জেনে যান ইয়াহিয়ার বাহিনীর আক্রমনের খবর। সার্বিক ধংসযজ্ঞের মুখে ২৭ মার্চ সারাদেশে ধর্মঘটের ডাক দিয়ে মুজিব সুটকেস গুছিয়ে গ্রেফতার হওয়ার অপেক্ষায় রইলেন নিজ বাসভবনে।


এরপরে মুজিব গ্রেফতার হলেন। “অপারেশন সার্চ লাইটে” বিরামহীন ৩৩ ঘন্টার হত্যাযজ্ঞের শিকার হয় হাজার হাজার বাঙ্গালি নরনারী। ঢাকার পিলখানা, রাজারবাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, পুরানা ঢাকায়, এবং চট্টগ্রাম, কুমিল্লা ও যশোর ক্যান্টনমেন্টে বাঙালী পুলিশ, ইপিআর এবং ইবিআর-এর সৈন্যদের পাইকারীভাবে হত্যা করে পাকিস্তানী বাহিনী। আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাদক তাজউদ্দীন প্রথমে ঢাকার শহরতলীতে আত্মগোপন করলেও পরে বাস্তব অবস্থা অনুধাবন করে আমিরুল ইসলামকে সঙ্গে নিয়ে ফরিদপুর ও কুষ্টিয়া হয়ে কোলকাতা গিয়ে হাজির হন ৩০ মার্চের সন্ধ্যায়। শেখ মুজিবের নির্দেশমত আওয়ামীলীগ দলীয় নেতারা শহর ছেড়ে গ্রামে এবং গ্রাম ছেড়ে ভারতের সীমানা অতিক্রম করে কোলকাতা, আগরতলা, শিলিগুড়ি বিভিন্ন স্থানে নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যান। সারা দেশ থেকে মানুষ সীমান্ত অতিক্রম করতে থাকে, ভারতের বিভিন্নস্থানে  শরনার্থী শিবিরে আশ্রিতের সংখ্যা অর্ধ কোটিতে ছড়িয়ে যায় কয়েক মাসের মধ্যে।

নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের অনুপস্থিতে পুর্ববাংলার সেনা কর্মকর্তারা বাংলাদেশ রক্ষার দায়িত্ব নিয়ে পাক বাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধ অব্যাহত রাখেন। এপ্রিলের ৪ তারিখে ভারতীয় সীমান্তঘেষা হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার  তেলিয়াপাড়া চা-বাগানে যুদ্ধরত সেনা কমান্ডার কর্নেল রব্, মেজর জিয়াউর রহমান, মেজর সফিউল্লা, মেজর খালেদ মোশাররফ, মেজর কাজী নুরুজ্জামান, মেজর নুরুল ইসলাম, মেজর মমিন চৌধুরী এবং আরও কয়েকজন মিলিত হয়ে কর্নেল ওসমানীর নেতৃত্বে গঠন করেন “সম্মিলিত মুক্তিফৌজ।” অন্যদিকে ভারত সরকারের সাহায্য ও সমর্থন লাভের আশায় ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর সঙ্গে তাজউদ্দীন সাক্ষাৎ করেন ৪ এপ্রিল। তাজউদ্দিনের ধারনা ছিল, শেখ মুজিব আগে থেকেই একটি আপদকালীন ব্যবস্থা নিয়ে রেখেছেন, কিন্তু তার ধারনা কার্যত ভূল প্রমানিত হয়, এবং তাজউদ্দীনকে গোড়া থেকেই শুরু করতে হয়। ৮ এপ্রিল কোলকাতার ভবানীপুর এলাকার রাজেন্দ্র রোডের এক বাড়ীতে আওয়ামী ও যুবনেতাদের সভায় ভারত সরকারের সাথে বোঝাপড়া সম্পর্কে অবহিত করেন তাজউদ্দীন এবং একটি প্রবাসী সরকার গঠনের লক্ষে কাজ শুরু করেন। শুরুতেই তাজউদ্দীনের নেতৃত্ব ও কতৃত্ব নিয়ে শুরু হয় বাদানুবাদ ও নেতৃত্বের কোন্দল। শেখ মুজিবের ভাগ্নে শেখ মনি নিজেকে মুজিবের অনুপস্থিতিতে একমাত্র বৈধ প্রতিনিধি দাবী করে তাজউদ্দীনের নেতৃত্ব মানতে অস্বীকার করেন, এবং চিত্ত সুতারের নেতৃত্বে ৪২ জন আওয়ামী লীগ ও যুব নেতা স্বাক্ষর সংগ্রহ করে তাজউদ্দীনের সরকার গঠন ও বেতার বক্তৃতা বন্ধ করার জন্য ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে এক আবেদন পাঠান। শুরু হলো দলাদলি। নির্বাচিত গণপরিষদের নেতারা বিভিন্নস্থানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকায় তাদের একত্র করা দূরুহ কাজ ছিল বটে। এ অবস্থায়, তাজউদ্দীন নিজেই বেড়িয়ে পড়েন তাদের খুঁজতে। ১১ এপ্রিল আগরতলায়  সৈয়দ নজরুল ইসলাম, ক্যাপ্টেন মনসুর আলী, আবদুল মান্নান, খোন্দকার মোশতাক আহমদ এবং কর্নেল ওসমানীসহ অন্যান্যদের সাথে ব্যাপক আলাপ আলোচনা করে প্রবাসী সরকারের অবয়ব তৈরী করে ঐদিনই আকাশবানী শিলিগুড়ি বেতারকেন্দ্র থেকে জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দান করেন তাজউদ্দীন। ১৭ এপ্রিল প্রবাসী সরকার শপথ নেয় মেহেরপুরের বৈদ্যনাথতলায়।

মে-জুন মাস থেকে শুরু হয় মুক্তিবাহিনী গঠনের কাজ। ন’মাস যুদ্ধকালে প্রায় লাখ খানেক মুক্তিযোদ্ধা ট্রেনিং নেয়, এদের তাদের মধ্যে শতকরা ১ ভাগেরও কম ছিল শরনার্থী শিবিরের। জীবনের ভয়ে পালিয়ে আসা বেশীরভাগ শরনার্থী ছিল হিন্দু সম্প্রদায়ের, যাদের মধ্যে খুব কম সংখ্যকই ছিল ট্রেনিং নিয়ে শত্রুর বিরুদ্ধে লড়াই করার মানসিকতা সম্পন্ন। তাছাড়া শরনার্থী শিবিরে পরিবারের জন্য রেশন কার্ডের ভিত্তিতে কিছু খাদ্যদ্রব্য ও নিরাপত্তার নিশ্চয়তা ছিল বিধায় যুদ্ধে যাওয়ার তাড়না ছিল কম। পক্ষান্তরে বাংলাদেশে থেকে নানা কারনে ক্ষতিগ্রস্থ ও সাহসী যুব ও ছাত্ররা সীমান্ত পেরিয়ে মুক্তিবাহিনীতে যোগদানের জন্য সচেষ্ট ছিল। সাহায্যের পরিবর্তে তাদের পদে পদে বাধার সম্মুখীন হতে হয়। চেষ্টা চরিত্র করে আওয়ামীলীগ দলীয় সনদ জোগাড় হলেও স্বাধীনতা সংগ্রামে আগ্রহী ছাত্র-যুবকদের নিয়োগে আওয়ামীলীগ নেতাদের মারাত্মক স্বজনপ্রীতি বাহিনী গঠনে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি করে। আওয়ামীলীগের বাইরের নানা দল ও মতের ছাত্র-যুবকদের মুক্তি বাহিনীতে নিয়োগে বাধা দেয়া ও নিরুৎসাহিত করা হতো। সেপ্টেম্বরে নাগদ রিক্রুটিং-এর ক্ষেত্রে দলীয় বৈষম্যের নীতি অনেকখানি হ্রাস পেলেও মুক্তিযোদ্ধাদের পর্যায়ে অবিশ্বাস, রেষারেষি ও দ্বন্দ্বের জের মূলত চলতেই থাকে (মঈদুল হাসান, ২০০৬)।

অপরদিকে শেখ মুজিবের ভাগিনা যুবলীগ নেতা শেখ ফজলুল হক মনির (শেখ সেলিমের বড় ভাই) বাড়াবাড়িতে ভারতীয় জেনারেল উবানের তত্ত্বাবধানে গঠিত হয় ’মুজিব বাহিনী’ বা বাংলাদেশ লিবারেশন ফোর্স (বিএলএফ)। এই বাহিনী না ছিল তাজউদ্দীন সরকারের নিয়ন্ত্রনে, না ছিল ওসমানীর অধীনে, এমনকি জেনারেল অরোরার কমান্ডেও ছিল না। এই রহস্যজনক এলিট বাহিনীর নেতৃত্বে ছিল ছাত্রলীগের তিন জঙ্গি ছাত্রনেতা আবদুর রাজ্জাক, তোফায়েল আহমেদ ও সিরাজুল আলম খান এবং যুবলীগ নেতা শেখ মনি। হাসানুল হক ইনুর মত উগ্রপন্থী বামপন্থী নেতা ছিলেন মুজিব বাহিনীর রাজনৈতিক প্রশিক্ষকদের একজন। মুজিব বাহিনীর অনেকেই শেষ পর্যন্ত যুদ্ধে নামার সুযোগ পাননি। আবার স্বাধীনতার পর তাঁরাই পরস্পরের বিরুদ্ধে লড়েছেন রক্ষীবাহিনী ও গণবাহিনীর আদলে। কার্যত মুজিব বাহিনীর জন্মই হয়েছিল স্বাধীনতা যুদ্ধের জন্য নয়, বরং বাংলাদেশকে বামদের হাত থেকে রক্ষার জন্য, তার অচিরেই তারা হত্যাকান্ডে জড়িয়ে পরে দেশ স্বাধীনের পরে (আহমদ ছফা)। ভারতের টেন্ডুয়ায় প্রায় দশ হাজার যুবকে মুজিব বাহিনীর প্রশিক্ষণ দেয়া হয়, মুজিবের অনুপস্থিতিতে এ বাহিনীর সদস্যদের শেখ মনির প্রতি আনুগত্যের শপথ পড়ানো হতো। মুক্তিবাহিনীর ট্রেনিং, অস্ত্র এমনকি খাবারের যখন ছিল অভাব, তখন মুজিব বাহনীর অস্ত্র, টেনিং ও সুযোগসুবিধা ছিল উন্নতমানের। নিরন্তর মুজিব বাহিনী বাংলাদেশ সরকারের নিয়ন্ত্রণাধীন মুক্তিযোদ্ধাদের আনুগত্য পরিবর্তন করে তাদের বাহিনীতে যোগ দেবার জন্য চাপ প্রয়োগ করেছে, কোথাও কোথাও অস্ত্র কেড়ে নিয়েছে এবং এ নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে কিছু কিছু সংঘর্ষও অনুষ্ঠিত হয়েছে। অবশ্য গোড়া থেকেই ‘মুজিব বাহিনী’ প্রবাসী সরকার গঠনের তীব্র বিরোধিতা করে এসেছে এবং নিরবচ্ছিন্নভাবে প্রচারণা চালিয়ে এসেছে যে, তারা এ সরকারকে স্বীকার করে না (মূলধারা ৭১)। শেখ মনি কেবল মুজিব বাহিনী বানিয়েই ক্ষান্ত ছিলেন না, বরং নিজের সম্পাদিত পত্রিকা সাপ্তাহিক “বাংলার বাণী’তে মুক্তিযোদ্ধাদের কৃতিত্ব হাইজ্যাক করে মুজিব বাহিনীর নামে খবর ছাপেন। এ ধরনের প্রোপাগান্ডায় মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধনায়ক জেনারেল ওসমানী রুষ্ট হয়ে মুজিব বাহিনীর তৎপরতা বন্ধ করার জন্য প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীনকে অনুরোধ করেন, অন্যথায় তিনি নিজেই পদত্যাগেরও হুমকি দিয়েছিলেন (মঈদুল হাসান)। যুদ্ধের মাঝামাঝি পর্বে মুক্তিযুদ্ধকে ‘জাতীয় মুক্তি সংগ্রামে’ রূপ দিয়ে আন্তর্জাতিক সহায়তা লাভ ও বিজয় ত্বরান্বিত করতে প্রবাসী সরকার যখন পাঁচটি দলকে নিয়ে “জাতীয় উপদেষ্টা কমিটি” গঠনে চেষ্টারত, তখন মুজিব বাহিনী ছিল প্রবাসী সরকার ভেঙ্গে দিয়ে যুব কমান্ডের কাছে কতৃত্ব আনয়নের লক্ষে উপদলীয় সংগ্রামে রত। শেখ মনির ‘মুজিব বাহিনী’ ছাড়াও খুলনা, বরিশাল, পটুয়াখালী ও ফরিদপুরের ৪০ জন জাতীয় ও প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীনের বিরুদ্ধে লিখিত অনাস্থা ঘোষণা করেন, যাদের নেতৃত্বে ছিলেন শেখ মণির নিকটাত্মীয় আবদুর রব সেরনিয়াবাত এবং শেখ আবদুল আজিজ। মূলত, প্রবাসী সরকার গঠন ও প্রধানমন্ত্রিত্ব নিয়ে প্রথম থেকেই আওয়ামী লীগ মহলে তাজউদ্দিনের বিরুদ্ধে জোর প্রচারণা শুরু হয় শেখ মনির নেতৃত্বে, এমনকি তাজউদ্দীনকে প্রাণনাশের চেষ্টাও করা হয়। এসময় তারা প্রচার করতে থাকে ‘তাজউদ্দীনই বঙ্গবন্ধুর গ্রেফতার হওয়ার কারণ’,‘তাজউদ্দীন যতদিন প্রধানমন্ত্রী, ততদিন ভারতের পক্ষে বাংলাদেশের স্বীকৃতিদান অসম্ভব’, ‘তাজউদ্দীন ও মন্ত্রিসভা যতদিন ক্ষমতায় আসীন ততদিন বাংলাদেশের মুক্তি অর্জন সম্ভব নয়’ (২১ ও ২৭শে অক্টোবর আওয়ামী লীগ কার্যকরী কমিটির সভায় আবদুল মমিন তালুকদার, শামসুল হক, নুরুল হক, আবদুল মালেক উকিল ও আবদুল হান্নান প্রমুখ)। স্বাধীনতার পরে বাংলাদেশের জন্য কোনো সেনাবাহিনীর প্রয়োজন নেই, ভারতের সাথে এমন একটি গোপন চুক্তির প্রেক্ষিতে এই মুজিব বাহিনী হতেই পরবর্তীকালে গঠন হয় মুজিবের কুখ্যাত ’রক্ষী বাহিনী’, যাদের হাতে নিহত হয়েছিল হাজার হাজার যুবক।

একদিকে রণাঙ্গনে যখন চলছিল স্বাধীনতার যুদ্ধ, তখন অপরদিকে ভারতে আশ্রয় নেয়া আওয়ামীলীগের আরেকদল নেতৃবর্গ মুজিব-ইয়াহিয়ার মার্চ-এর আলোচনার সূত্র ধরে ”পাকিস্তান কনফেডারেশন” প্রস্তাবের ভিত্তিতে গোপনে সমঝোতার আলোচনা চালিয়ে যেতে থাকে। আওয়ামীলীগের সিনিয়র নেতা আবদুল মালেক উকিল অলি আহাদকে জানান যে, তিনি এই আলোচনার ফলাফল সম্পর্কে আশাবাদী (জাতীয় রাজনীতি, পৃষ্ঠা ৪২৪)। যুদ্ধের মাঝামাঝি পর্বে ৭ই আগস্ট ইয়াহিয়ার সরকার শেখ মুজিব সহ আওয়ামী লীগের ৭৯ জনের নাম জাতীয় পরিষদের সদস্যপদ বাতিল করে (The Times, 11 October 1971), কিন্তু পরবর্তীতে লায়ালপুর কোর্টের ট্রায়াল ও মার্কিন কূটনীতির প্রভাবে  বহিষ্কৃত আওয়ামী লীগ জাতীয় পরিষদের সদস্যদের পূর্ববর্তী তালিকা ১০ই অক্টোবরে কিঞ্চিত পরিবর্তিত হয়, যাতে শেখ মুজিবের জাতীয় পরিষদ সদস্যপদ বহাল থাকে (International Herald Tribune, 1 November 1971), এমনকি শেখ মুজিবের পরিবারে জন্য ইয়াহিয়া সরকার মাসিক ১৫০০ রুপী (যার বর্তমান মূল্যমান ৫ লাখ ৩৬ হাজার টাকা) ভাতা চালু থাকে (অলি আহাদ, জাতীয় রাজনীতি ১৯৪৫-৭৫)। এ ছাড়া আওয়ামীলীগ দলীয় ৮৮ জন জাতীয় ও প্রাদেশিক পরিষদের সদস্যকে পিন্ডি থেকে বৈধ বলে আলাদা গেজেট জারী ইয়াহিয়ার সরকার। অর্থাৎ মুজিব এবং ৮৭ জন আওয়ামীলীগ সদস্য পাকিস্তানের জন্য নিরাপদ হিসাবে বিবেচিত! খবরে বলা হয়, বাকীদেরও পরিস্কার হওয়ার সুযোগ ছিল। বিষয়টি রহস্যজনক বৈ কি!

কোলকাতার ৫৮ বালিগঞ্জ বাড়িটি ছিল প্রবাসী সরকারের আবাসিক কার্যালয়। ওই ভবনেই বসবাস ও দাপ্তরিক কাজ করতেন প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমেদ এবং অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি নজরুল ইসলাম। প্রয়োজনের তুলনায় ছোট এ বাড়িটিতে সারাক্ষন “জয় বাংলা”র লোকের ভিড় লেগেই থাকত। বাংলাদেশ থেকে পালিয়ে আসা আওয়ামীলীগ দলীয় এমপি, নেতা, আমলা, কর্মী, আত্মীয়স্বজন, আমত্য, চামচা সবার জন্য এ বাড়িটি ছিল অবারিত। ঢালাওভাবে ভাত-গোশত দিয়ে ভুড়ি ভোজ এমনকি নিশি যাপনেও কোনো কার্পণ্য ছিল না। অভ্যাগতদের প্রত্যেকের হাতে দেখা যেত একটা নতুন ব্রিফকেস কিংবা ছোট এট্যাচী, কোন কোন নেতার কাঁধে ঝোলানো ব্যাগ। আহার নিদ্রা, এমনকি প্রাকৃতিক কর্ম সম্পাদনের সময়ও এসব ব্যাগ কাছছাড়া করতো না কেউ। এমন একটি ঘটনায় সেনা কর্মকর্তারা একজন অতিথির ব্রিফকেস পরীক্ষা করে ১২ লাখ পাকিস্তানী রুপী (বর্তমান মূল্য প্রায় ৪৩ কোটি টাকা) উদঘাটিত হয়। ঘটনার আকস্মিকতায় কর্নেল ওসমানীর জেরার মুখে ভদ্রলোকটি টাকার কথা চেপে যান। পরে উদ্ধারকৃত বিপুল টাকা প্রধানমন্ত্রীর তহবিলে জমা করে দেয়া হয়। মূলত: দেশ ছাড়ার আগে প্রশাসন ও রাজনৈতিক নেতারা পূর্ব বাংলার ব্যাংক ট্রেজারীগুলো সব উজাড় করে অর্থ ও সোনাদানা নিয়েই পাড়ি জমান ভারতবর্ষে। আহমদ ছফা এ জাতীয় আরেকটি ঘটনার কথা বর্ণনা করেন এভাবে, “এই সোনা তো বাংলাদেশের জনগনের সম্পত্তি।…যে তিনজন আমরা সোনা নিয়ে এসেছিলাম তারমধ্যে একজন এমপি’র আপন ছোট ভাই। আরেকজন স্থানীয় আওয়ামীলীগ প্রেসিডেন্টের শালা। তারা এখন কোথায় আছে কি করছে, কিছু জানিনে। অথচ এদিকে শুনতে পাচ্ছি সেই সোনা ইতোমধ্যে ভাগভাটোয়ারা হয়ে গেছে।.....সত্যিই তো এরকম একজন মানুষ দেড় মন সোনা বয়ে নিয়ে এসেছে শুনলে এখনকে বিশ্বাস করবে? (অলাতচক্র, পৃষ্ঠা ৬২)।

বিভিন্ন শরনার্থী শিবির পরিচালনার দায়িত্বে ভারত সরকারের লোকের পাশাপাশি আওয়ামী নেতারাও ছিলেন। এসব নেতাদের বেশীরভাগই পরিবার পরিজন সমেত বেশ আয়েশী জীবন যাপন করতেন। এমনকি অভিজাত দোকান, সুরিখানা ও নাইটক্লাবগুলো জয়বাংলার লোকে ছিল জমজমাট। তখন পশ্চিম বাংলায় “জয় বাংলা”র লোক মানেই বাড়তি খাতির। এ নিয়ে ৮নং সেক্টর কমান্ডার মেজর জলিল লিখেছেন,“আমি যখন তাদেরকে দেখেছি কোলকাতার অভিজাত এলাকার হোটেল-রেস্টুরেন্টগুলোতে জমজমাট আড্ডায় ব্যস্ত। একাত্তরের সেই গভীর বর্ষায়ত দিনরাতে কোলকাতার অভিজাত রেস্টুরেন্টগুলোতে বসে গরম কফির কাপে চুমুক দিতে গিয়ে হাটুতক কাদা জলে ডোবান্ত মুক্তিযুদ্ধের ট্রেনিং শিবিরগুলোতে অবস্থানরত হাজার হাজার তরুনের বেদনাহত চেহারাগুলো তারা একবারও দেখেছে কিনা তা আজও  আমার জানতে ইচ্ছা করে। আমার জানতে ইচ্ছে করে কোলকাতার পার্ক স্ট্রীটের অভিজাত নাইট ক্লাবগুলোতে ‘বীয়ার’ হুইসকি পানরত আওয়ামী লীগ নেতৃত্বের মনোমুকুরে একবারও ভেসে উঠেছে কিনা সেই গুলিবিদ্ধ কিশোর কাজলের কথা যে মৃত্যুর পূর্বক্ষণ পর্যন্ত চীৎকার করে ঘোষণা করেছে ‘জয় বাংলা’। আমার জানতে ইচ্ছে করে আরো আরো অনেক কিছু। কিন্তু জানতে ইচ্ছে করলেই তো আর জানা যায় না।” কলকাতা ও আগরতলার নাইট ক্লাব ও বেশ্যালয়ে প্রবাসী নেতাদের অনেকেরই নিয়মিত আসা যাওয়া ছিল। প্রবাসী সরকারের একজন মন্ত্রী সোনাগাছির বেশ্যালয়ে মারামারি করে কলকাতা পুলিশের হাতে ধরা পড়ে অবশেষে মুজিবনগর সরকারের কাছে হস্তান্তরিত হয়। আহমদ ছফা ঘটনাটিকে এভাবে বর্ণনা করেছেন, “যে সকল মানুষকে দেশে থাকতে শ্রদ্ধা করতাম, কলকাতায় অনেকের আচরণ দেখে সরল বাংলায় যাকে বলে কিংকর্তব্যবিমুঢ়- তাই হতে হচ্ছে। এখনও তোমরা স্যার ডাকছ তার বদলে শালা বললেও অবাক কিছু ছিল না। এখানকার একটা সাপ্তাহিক খবরটা ছেপেছে। প্রবাসী বাংলাদেশ সরকারের একজন মন্ত্রী নাকি সোনাগাছিতে গিয়ে পুলিশের হাতে ধরা পড়ে। জানেন তো স্যার, সোনাগাছি কি জন্য বিখ্যাত?…পুলিশ অফিসারের জেরার মুখে ভদ্রলোককে কবুল করতেই হল, তিনি ভারতে প্রবাসী সরকারের একজন মন্ত্রী। পুলিশ অফিসার তখন বললেন, তাহলে স্যারের গুডনেমটা বলতে হয়। মন্ত্রী বাহাদুর নিজের নাম প্রকাশ করার সঙ্গে সঙ্গে ভেরিফাই করে দেখে যে বক্তব্য সঠিক। পুলিশ অফিসারটি দাঁতে জিভ কেটে বললেন, স্যার কেন মিছিমিছি সোনাগাছির মত খারাপ জায়গায় নিজেকে নাহক ঝুট-ঝামেলার মধ্যে পড়বেন। আর ভারত সরকারের আতিথেয়তার নিন্দে করবেন। আগে ভাগে আমাদের স্মরণ করলেই পারতেন, আমরা আপনাকে ভিআইপি-র উপযুক্ত যায়গায় পাঠিয়ে দিতাম (ছফা, ১৯৯৩, পৃষ্ঠা ২০-২১)। এসব নেতাদের কীর্তিকলাপ নিয়ে যুদ্ধরত মুক্তিযোদ্ধাদের তীব্র ঘৃনা উঠে এসেছে আহমদ ছফার কলমে, “কলকাতা এলে মাথায় খুন চেপে বসে। ইচ্ছা জাগে এই ফর্সা কাপড় পরা তথাকথিত নেতাদের সবকটাকে গুলি করে হত্যা করি। এ্যায়াসা দিন নেহি রয়েগা। একদিন আমরা দেশে ফিরে যাব। তখন সব কয়টা বানচোতকে গাছের সঙ্গে বেঁধে গুলি করে মারব। দেখি কোন বাপ সেদিন তাদের উদ্ধার করে। কলকাতার নরম বিছানায় ঘুমিয়ে পোলাও-কোর্মা খাওয়ার মজা ভাল করে ‍দেখিয়ে দেব” (ছফা, ৮১)।



“স্টপ জেনোসাইড” খ্যাত চলচ্চিত্রকার কাজী জহির রায়হান যুদ্ধকালে পশ্চিম বাংলার বিভিন্ন স্থানে কাজ করতে গিয়ে উদ্বাস্তু শিবিরে আওয়ামীলীগ নেতাদের অপকর্মের অনেক ফুটেজ ও ডকুমেন্ট সংগ্রহ করেন, যা দিয়ে তিনি ডকুমেন্টারী বানাতে চেয়েছিলেন। কিন্তু যুদ্ধপরবর্তী সরকারের সাথে সংশ্লিষ্ট পাপিষ্ঠরা এসব কারনে জহির রায়হানকে গায়েব করে দেয়, তার লাশটিও খুঁজে পাওয়া যায় নি। জহির রায়হান সংবাদ সম্মেলন করে এসব চিত্র প্রকাশের হুমকি দিয়েছিলেন। আর এ হুমকির পরই তাঁর অন্তর্ধানের ঘটনা ঘটে। জহির রায়হানের ভাই শহীদুল্লাহ কায়সার যুদ্ধকালে ১৪ ডিসেম্বর হানাদার বাহিনীর দ্বারা অপহৃত হন। ১৯৭২ সালের ৩০ জানুয়ারী ভাইকে খোঁজার নাম করে জহির রায়হানকে ডেকে নেয় স্বাধীন বাংলার প্রশাসন পরিচিতরা। এরপর থেকে জহির নিখোঁজ। তার লাশও খুঁজে পাওয়া যায়নি। মুজিব সকারের পুলিশ ও মিরপুর এলাকা নিয়ন্ত্রকারী বাহিনী জহির রায়হানের পরিবারকে সাহায্য করার পরিবর্তে এড়িয়ে যেতেন। জহির রায়হানের নিখোঁজ হওয়া প্রসঙ্গে ৯নং সেক্টর কমান্ডার মেজর এম.এ. জলিল লিখেছেন, “মুক্তিযুদ্ধের সময়কালের আওয়ামীলীগ নেতাদের কুকীর্তি ফাঁস করে দিতে চাওয়ায় নিখোঁজ হন সাংবাদিক জহির রায়হান। ভারত অবস্থানকালে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বের অনেক কিছুই জানতে চেয়েছিলেন স্বনামধন্য সাহিত্যিক এবং চিত্র নির্মাতা কাজী জহির রায়হান। তিনি জেনেছিলেন অনেক কিছু, চিত্রায়িতও করেছিলেন অনেক দুর্লভ দৃশ্যের। কিন্তু অতসব জানতে বুঝতে গিয়ে তিনি বেজায় অপরাধ করে ফেলেছিলেন। স্বাধীনতার ঊষালগ্নেই তাকে সেই অনেক কিছু জানার অপরাধেই প্রাণ দিতে হয়েছে। ভারতের মাটিতে অবস্থান কালে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বের চুরি, দুর্নীতি, অবৈধ ব্যবসা, যৌন কেলেংকারী, বিভিন্ন রূপ ভোগ-বিলাস সহ তাদের বিভিন্নমূখী অপকর্মের প্রমাণ্য দলীল ছিল- ছিল সচিত্র দৃশ্য। আওয়ামী লীগের অতি সাধের মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধে কাজী জহির রায়হানের এতবড় অপরাধকে স্বার্থান্বেষী মহল কোন যুক্তিতে ক্ষমা করতে পারে? তাই বেঁচে থেকে স্বাধীনতার পরবর্তী রূপ দেখে যাওয়ার সুযোগ আর হয়নি জহির রায়হানের। আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার ৩ নম্বর আসামী স্টুয়ার্ড মুজীবেরও ঘটেছিল এই পরিণতি। এই দায়িত্বশীল নিষ্ঠাবান তেজোদীপ্ত যুবক স্টুয়ার্ড মুজীব ৯ নম্বর সেক্টরের অধীনে এবং পরে ৮ নং সেক্টরে যুদ্ধ করেছে। তার মত নির্ভেজাল ত্বরিতকর্মা একজন দেশপ্রেমিক যুদ্ধা সত্যিই বিরল। প্রচন্ড সহস ও বীরত্বের অধিকারী স্টুয়ার্ড মুজীব ছিল শেখ মুজিবের অত্যন্ত প্রিয় অন্ধভক্ত। মাদারীপুর থানার অন্তর্গত পালং অধিবাসী মুজীবকে দেখেছি বিদ্যুতের মতই এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্ত ছুটোছুটি করতে। কি করে মুক্তিযুদ্ধকে ত্বরান্বিত করা যায়, ভারতের কোন নেতার সাথে যোগাযোগ করলে মুক্তিযুদ্ধের রসদ লাভ করা যায় কেবল সেই চিন্তা এবং কর্মেই অস্থির দেখেছি স্টুয়ার্ড মুজীবকে। মুজীব ভারতে অবস্থিত আওয়ামী লীগ নেতাদের অনেক কুকীর্তি সম্পর্কেই ছিল ওয়াকিফহাল। এতবড় স্পর্ধা কি করে সইবে স্বার্থান্বেষী মহল। তাই স্বাধীনতার মাত্র সপ্তাহ খানিকের মধ্যেই ঢাকা নগরীর গুলিস্তান চত্তর থেকে হাইজ্যাক হয়ে যায় স্টুয়ার্ড মুজীব। এভাবে হারিয়ে যায় বাংলার আর একটি উজ্জ্বল নক্ষত্র। (পৃষ্ঠা ৫৫, ৫৬)

জহির রায়হানের হারিয়ে যাওয়া নিয়ে তার সহধর্মীনি চিত্রনায়িকা সুচন্দা বলেন,”জহির বেঁচে থাকা অবস্থায় সর্বশেষ প্রেসক্লাবে দাঁড়িয়ে এক বক্তব্যে বলেছিলেন­, যারা এখন বড় বড় কথা বলেন, নিজেদের বড় বড় নেতা মনে করেন, তাদের কীর্তি কাহিনী, কলকাতায় কে কী করেছিলেন, তার ডকুমেন্ট আমার কাছে রয়েছে। তাদের মুখোশ আমি খুলে দেবো।’ এই কথা তিনি মুখ দিয়ে প্রকাশ্যে বলে ফেলার পরই তার উপর বিপদ নেমে আসে। এই বলাটাই তার জন্য কাল হয়ে দাঁড়ালো।” জহির রায়হানের বোন নাসিমা কবির যখন নিখোঁজ জহির রায়্হারের খুঁজে বড় বড় নেতাদের কাছে রাত দিন পাগলের মত ছুটে গেছেন। ১৯৭২ সালে পত্রিকা গুলোতে বেশ লেখালেখি শুরু হয়। যে রফিকের ফোন পেয়ে জহির রায়হান ঘর থেকে বের হয়ে যেন, সেই রফিককে একদিন হঠাৎ করে সপরিবারে আমেরিকায় পাঠিয়ে দেয়া হয়। জহির রায়হানের বড় বোন নাসিমা কবিরকে ডেকে নিয়ে শেখ মুজিবুর রহমান সরাসরি বললেন - ”জহিরকে নিয়ে বেশি চিৎকার করলে তুমিও নিখোঁজ হয়ে যাবে” (দৈনিক আজকের কাগজ,৮ ডিসেম্বর ১৯৯৩)। অর্থাৎ শেখ মুজিব নিজেও জহির রায়হানের গুমকারীদের সঙ্গে আপোষ করেছিলেন!

কেবল জহির রায়হানই নয়, যুদ্ধকালে প্রবাসী সরকারের বিভিন্ন নেতাদের দুর্নীতি ও অনৈতিক কর্মকান্ড নিয়ে শেখ মুজিবের কাছে ট্রাইবুনাল গঠন করার বিচার ও তাদেরকে দল থেকে বহিস্কারের দাবীও তোলে স্বাধীন বাংলা যুব কমান্ড। মুজিব নগর সরকারের ১০০ কোটি রূপী (বর্তমান মূল্য প্রায় ৩৫,৭০০ কোটি টাকা) খরচের কোনো হিসাব পাওয়া যায়নি (ইত্তেফাক ১৫ আগষ্ট ১৯৭২)। প্রবাসী সরকারের কর্তাব্যক্তি এবং নেতাদের দুর্নীতি ও নানা অপরাধমূলক কর্মকান্ডের নানা প্রমানাদি চারিদিকে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে - জনতার আদালতে বিচারের সুযোগ এখনো শেষ হয়ে যায়নি।

লেখক: মোঃ শামসুল আলম
ডেপুটি সেক্রেটারী, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার